,

আশুগঞ্জে পুলিশকে গুলি করে হত্যা

এনবি নিউজ ঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলায় ভানু চন্দ্র দাস (৪৫) নামে এক গ্রাম পুলিশকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার সকাল ৯ টার দিকে উপজেলার তালশহর ইউনিয়নের তালশহর-বাহাদুরপুর সড়কে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত ভানু চন্দ্র দাস ওই ইউনিয়নের তালশহর গামের হরি চন্দ্র দাসের ছেলে। তিনি তালশহর ইউনিয়নে কর্মরত ছিলেন। এ নিয়ে পুরো তালশহর জুরে চলছে আতংক্য।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকালে আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সদ্য সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আমির হোসেনের গাড়িতে তেল ভর্তি করার জন্য ভানু চন্দ্র দাস সরাইল বিশ্বরোড পাম্পের দিকে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে তালশহর-বাহাদুরপুর সড়কে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা গাড়িটির গতিরোধ করে। পরে অটোরিকশা থেকে তিন-চারজন যুবক অস্ত্র হাতে বের হলে গাড়ি চালক দৌড়ে পালিয়ে যান। এ সময় ওই যুবকরা গাড়িতে থাকা গ্রাম পুলিশ ভানু চন্দ্র দাসকে গুলি করেন। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

তালশহর ইউপি চেয়ারম্যান আবু শামার ছেলে আমির হোসেন জানান, সকালে আমাদের ব্যক্তিগত গাড়ির জ্বালানি তেল আনতে চালকের সঙ্গে গ্রাম পুলিশ ভানু লালকে পাঠানো হয়। গাড়িটি তালশহর-বাহাদুরপুর সড়ক হয়ে আশুগঞ্জ যাচ্ছিল। কিছুদূর যাওয়ার পর একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশায় কয়েকজন যুবক গাড়িটির গতি রোধ করে। এ সময় গাড়ির চালক পালিয়ে যায়। দুর্বৃত্তরা গাড়ি লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে পালিয়ে যায়। একটি গুলি ভানু লালের মাথায় বিদ্ধ হলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

তিনি আরো জানান, গত ৩১ মার্চ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আমি ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছিলাম। এর বিরোধ নিয়ে আগে থেকেই বিভিন্ন হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছিল। এরই জের ধরে হয়তো আমরা গাড়িতে আছি মনে করেই গুলি চালানো হয়েছে। ভানু লাল হামলাকারীকে চিনে ফেলার কারণেই তাকে হত্যা করা হয়েছে।
আশুগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদ আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, কারা এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে সেটি এখনো জানা যায়নি। আমরা বিষয়টি গুরুত্বসহকারে তদন্ত করে দেখছি।