,

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৫ আওয়ামীলীগ নেতাকে বহিস্কারের সুপারিশ

এনবি প্রতিনিধিঃ
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩-(সদর-বিজয়নগর) আসনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপির বিরোধীতা করার অভিযোগে আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের ৫ নেতাকে দলের সাধারণ সদস্যপদ সকল পদ থেকে বহিস্কারের জন্য কেন্দ্রীয় কমিটির সুপারিশ পাঠানোর সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে জেলা আওয়ামীলীগ।
গত সোমবার বিকালে স্থানীয় সুর স¤্রাট দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গনে অনুষ্ঠিত জেলা আওয়ামীলীগের কার্যকরী কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
বহিষ্কারের জন্য সুপারিশকৃত ৫ নেতা হলেন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ-সভাপতি শফিকুল আলম, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানুল হক সেন্টু, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিসেস মিনারা আলম ও জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি কাউসার আহমেদ।
জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপির সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকারের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি তাজ মোহাম্মদ ইয়াছিন, মিসেস নায়ার কবীর, মোঃ হেলাল উদ্দিন, মুজিবুর রহমান বাবুল, অ্যাডভোকেট আবু তাহের, অধ্যক্ষ আবুল খায়ের দুলাল, জাতীয় পরিষদ সদস্য আবুল কালাম ভূঞা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুল বারী চৌধুরী মন্টু, মাঈনউদ্দিন মঈন, গোলাম মহিউদ্দিন খান খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম খোকন, শাহআলম সরকার। সভায় জেলা আওয়ামীলীগের সম্পাদকমন্ডলী ও কার্যকরী কমিটির সদস্যবৃন্দও বক্তব্য রাখেন।
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ৫ নেতাকে বহিষ্কারের সুপারিশের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, সোমবার অনুষ্ঠিত জেলা আওয়ামীলীগের কার্যকরী কমিটির সভায় ৫ নেতাকে বহিষ্কারের সুপারিশের জন্য সর্বসম্মতভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
এ ব্যাপারে বহিষ্কারের সুপারিশকৃত জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন বলেন, আমি দুইবারের পৌর মেয়র, গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আসনে দলীয় মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলাম। এজন্য মোকতাদির চৌধুরী এমপি আমার ওপর বিরাগভাজন হন। জেলা আওয়ামীলীগের আগামী সম্মেলনে যাতে আমি সভাপতি প্রার্থী হতে না পারি সেজন্য দলের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকারের প্ররোচনায় মোকতাদির চৌধুরী এমপি দলীয় নেতাদের প্রভাবান্বিত করে আমাকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে বহিষ্কারের সুপারিশ করেছেন।