Advertisement

ব্রাহ্মণবাড়িয়া বাতিঘরের উদ্যোগে দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

NewsBrahmanbaria

এই আর্টিকেল টি ৩০৪।

স্টাফ রিপোর্টার

পবিত্র ঈদুল-ফিতর উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া বাতিঘরের উদ্যোগে অসহায় পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। রোববার বিকেলে সুরসম্রাট দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন মিলনায়তনে দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে এসব খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

খাদ্য সামগ্রীতে ছিল- চাল, ডাল, আলু, পেয়াজ, সয়াবিন তেল, আটা, দুধ, চিনি, লবণ, সেমাই, নুডলস ও কিসমিস।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি আল-আমিন শাহীনের সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক হাবিবুর রহমান পারভেজের সঞ্চালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল কুদ্দুস ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিক্যাল কলেজের চেয়ারম্যান ডা. আবু সাঈদ।

ঈদ সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে অনুভূতি ব্যক্ত করেন জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. ফাইজুর রহমান ফয়েজ, প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আ.ফ.ম কাউসার, জেলা নাগরিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা রতন কান্তি দত্ত, সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আলী আজম, সানলাইফ হসপিটালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাহাঙ্গীর হোসেন, ঠিকাদার সুজন আহমেদ, হাজী মোহাম্মদ আলী, নুরুল ইসলাম মুন্সি, আরেফিন হোসেন হৃদয়, আশরাফ উদ্দিন ও সাংবাদিক মেহেদী নুর পরশ প্রমূখ।

এসময় পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল কুদ্দুস বলেন, বাতিঘরের ছেলেরা যে কাজটি করছে সেটি খুবই প্রংশনীয়। তাদের বেওয়ারিশ লাশ দাফন কাজের কবরস্থানটি পুঃসংস্কার করার জন্য কাজ হাতে নিয়েছি। সব ঠিক থাকলে ২০২৪ সালের প্রথম দিকে কবরস্থানে মাটি ফেলাসহ সীমানা প্রাচীর করে দেওয়া হবে।

খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিক্যাল কলেজের চেয়ারম্যান ডা. আবু সাঈদ বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া বাতিঘরের সদস্যরা চিকিৎসক কিংবা নার্স না হয়েও করোনাকালীন সময় থেকেই বেওয়ারিশ লাশ দাফন করে আসছেন। তারা প্রতিনিয়ত রোগীদের স্বেচ্ছায় রক্তদান করছেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডা. আবু হামেদ বাবু, সহকারী অধ্যাপক ডা. রনজিত বিশ্বাস, ড্রিম ফর ডিস অ্যাবিলিটি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হেদায়েত আজিজ মুন্না, কীর্তি বিলাশের প্রতিষ্ঠাতা কাজী নাজমুল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাসুম বিল্লাহ, অংকুর শিশু-কিশোর সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা আনিসুর রহমান রিপন, যুবলীগ নেঠতা মহসিন খন্দকার, সাংবাদিক আশিকুর রহমান মিঠু, ইফতেখার রিফাত, নাসিফ জাবেদ নীলয় ও রাশেদ সওদাগর প্রমুখ।

Advertisement

Sorry, no post hare.

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com