২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ. ১৬ই মে, ২০২১ ইং

একুশ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন করে এগিয়ে যাবে একুশে আলো

স্টাফ রিপোর্টার

২০ বছরে পদার্পণ করলো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জনপ্রিয় পত্রিকা দৈনিক একুশে আলো। এ উপলক্ষ্যে রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) জেলা শহরের মসজিদরোডস্থ পত্রিকাটির সম্পাদকীয় ও বাণিজিক কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও কেক কাটার আয়োজন করা হয়।

একুশে আলোর সম্পাদক সেলিম পারভেজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন জামি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুর রহিম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি খ. আ. ম. রশিদুল ইসলাম।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের কার্যকরী কমিটির সদস্য ফরহাদুল ইসলাম পারভেজের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন একুশে আলোর নির্বাহী সম্পাদক ও আশুগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোজাম্মেল হক, প্রেস ক্লাবের সংস্কৃতি ও তথ্যপ্রযুক্তি সম্পাদক মজিবুর রহমান খান, অনলাইন নিউজ পোর্টাল ঢাকাপোস্ট ডটকম ও দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের জেলা প্রতিনিধি আজিজুল সঞ্চয় প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সদর মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন্স) ইশতিয়াক আহমেদ, একুশে আলোর প্রধান বার্তা সম্পাদক ও এশিয়ান এইজের জেলা প্রতিনিধি আশিকুর রহমান মিঠু, যমুনা টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি শফিকুল ইসলাম, একুশে আলোর স্টাফ রিপোর্টার ও দৈনিক দেশকালের জেলা প্রতিনিধি আরিফুর রহমান, লালপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক বাকের আহমেদ খান, সাংবাদিক আমিরজাদা চৌধুরী, ডেইলি ট্রাইব্যুনালের জেলা প্রতিনিধি ইফতেয়ার উদ্দিন রিফাত, দৈনিক লাখো কণ্ঠের জেলা প্রতিনিধি বাহাদুর আলম, এশিয়ান এইজের নবীনগর উপজেলা প্রতিনিধি খানজাহান আলী, একুশে আলো’র গ্রাফিক্স ডিজাইনার হাফেজ মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন খান প্রমুখ।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, মফস্বল শহর থেকে টানা ১৯ বছর একটি পত্রিকা প্রকাশ হওয়া সত্যি অনেক প্রশংসনীয় ও গর্বের। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে পাঠকদের এগিয়ে রাখার কারণেই একুশে আলো এতদূর পর্যন্ত আসতে পেরেছে। ভবিষ্যতেও একুশে আলো একুশ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন করে দায়িত্বশীল এবং বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা করবে বলে আমরা আশা রাখি। সবসময় পাঠকের চাহিদা ও রুচিকে প্রাধান্য দিয়ে পাঠকদের এগিয়ে রাখবে একুশে আলো। পরে আলোচনা সভা শেষে অতিথিরা কেক কেটে একুশে আলোর ২০ বছরে পদার্পণের আনন্দ উদযাপন করেন।