২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ. ১৬ই মে, ২০২১ ইং

আদর্শ রাষ্ট্রপ্রধান হজরত আবুবকর সিদ্দিক ( রা:)

এনবি ডেস্ক:
পুরুষদের মধ্যে সর্বপ্রথম মুসলমান ও ইসলামের প্রথম খলিফা হজরত আবুবকর (রা:)। যিনি মুসলিম মিল্লাতের কাছে সিদ্দিক(সত্যবাদী) হিসেবে প্রসিদ্ধ। কারণ তিনি সর্বদা ই সত্য কথা বলতেন।সৎকাজের প্রতিযোগিতায় তিনি সকলের চাইতে অগ্রগামী ছিলেন।
যে সকল সৌভাগ্যবান সাহাবি সর্বপ্রথম ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন, হজরত আবুবকর সিদ্দিক(রা:) তাদের মধ্যে অন্যতম। আবুবকর (রা:) র ইসলাম গ্রহণ সম্পর্কে হুজুর( সা:) নিজে বলেন, আমি যাকে ই ইসলামের দাওয়াত দিয়েছি তার মধ্যেই এক প্রকার দ্বিধা- দ্বন্দ্ব অবস্থা দেখতে পেয়েছি।কিন্তু যখন আবুবকরের সামনে ইসলামের দাওয়াত পেশ করেছি তখন তিনি কোনরূপ সংকোচ বোধ না করে সাথে সাথে ই ইসলাম গ্রহণ করে মুসলমান হয়ে গিয়েছিলেন।তিনি ছিলেন মোহাম্মদ ( সা:) এর বিপদআপদের সাথী। মোট কথা হলো বিশ্বনবী মোহাম্মদ (সা:) এর পরে মানবজাতির মধ্যে আবুবকর সিদ্দিক(রা:) হলো সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব।
প্রথমে তিনি একজন ধনী ব্যবসায়ী ছিলেন।কিন্তু ইসলাম গ্রহনের পর মুসলমানদের সাহায্যার্থে এ সবকিছু খরচ করতে করতে এমন অবস্থায় উপনিত হলেন যে, হুজুর( সা:) একবার সাহাবিদের কাছ থেকে চাঁদা করার সময় আবুবকর সিদ্দিক( রা:) ঘরে যা ছিল সম্পূর্ণ এনে রাসুলের সামনে পেশ করলেন। হুজুর ( সা:) বললেন  আবুবকর!  ঘরে কি রেখে এসেছেন?উত্তরে বললেন, আল্লাহ এবং তার রাসুলকে। অর্থাৎ ঘরে যা ছিল তা ই নিয়ে এসেছেন।
ইসলামের জন্য আবুবকর ( রা:) এর ত্যাগ তিতিক্ষা ছিল সীমাহীন। হুজুর( সা:) বলেন,আমার উপর যার যতো এহসান ছিল প্রত্যেকের প্রতিদান ই আমি দিয়ে দিয়েছি কিন্তু আবুবকর ( রা:) এর প্রতিদান বাকী রয়ে গেছে। আল্লাহ তায়ালা কিয়ামতের দিন নিজ হাতে আমার আবুবকরের প্রতিদান দান করবেন।
হুজুর(সা:) এর ওফাতের পর যখন মুসলমানদের খলিফা( রাষ্ট্রপ্রধান)  নিযুক্ত করা হল তখন ভোরে কিছু কাপড় নিয়ে বাজারে বিক্রি করার উদ্দেশ্যে যেতে উদ্যত হলেন, উমর(রা:) তা দেখে জিজ্ঞাসা করলেন কোথায় যাচ্ছেন?
উত্তরে তিনি বললেন, আমাকে তো রাষ্ট্রপ্রধান করে মুসলমানদের কাজে নিযুক্ত করে দেওয়া হয়েছে কিন্তু আমার পরিবার পরিজন রয়েছে তাদের খানাপিনার ব্যবস্থা ও তো করতে হবে তাই বাজারে যাচ্ছি কাপড় বিক্রি করার জন্য।
হজরত আবু উবায়দা( রা:) ছিলেন রাষ্ট্রের কোষাগারের দায়িত্বে নিয়োজিত।
উমর( রা:) বললেন, আসুন আমরা তার কাছে যায়। তিনি আপনার জন্য কিছু ভাতা ঠিক করে দেবেন।
আবু উবায়দা( রা:) বললেন,একজন সাধারণ মুহাজির সাহাবির ভাতা যে পরিমাণ আপনাকে ও তাই দেওয়া হবে।
বিভিন্ন বর্ননায় পাওয়া যায় যে, যে পরিমাণ ভাতা আবুবকর ( রা:) র জন্য নির্ধারণ করা হয়ে ছিল তা দিয়ে উনার সংসার পরিচালনা করার জন্য যথেষ্ঠ ছিলনা।
 রাষ্ট্রপ্রধান হয়ে ও অতিরিক্ত সুবিধা ভোগ না করে তিনি সাধারণ ভাবে ই জীবন যাপন করেছিলেন।
রাষ্ট্রীয় সম্পদ ব্যবহারে তিনি সর্বদা সতর্কতা অবলম্বন করতেন।
একবার আবুবকর সিদ্দিক( রা:) এর স্ত্রী হজরত উম্মে রুমান( রা:) তার স্বামীকে বললেন, বাচ্ছাদের মিষ্টান্ন খেতে মন চাচ্ছে।রাষ্ট্রপ্রধান স্বামী উত্তর দিলেন আমার নিকট তো এতো পয়সা নেই যা দিয়ে তোমাদের জন্য মিষ্টান্ন ক্রয় করে  খাওয়াতে পারি।
স্ত্রী বললেন, আমরা যদি দৈনিক খরচ থেকে সামান্য সামান্য বাচিয়ে রাখি এবং তা দিয়ে মিষ্টান্ন ক্রয় করে আনতে পারব। কিছুদিন পর কিছু পয়সা বাচিয়ে স্বামীর হাতে দিলেন মিষ্টান্ন আনার জন্য।
কিন্তু আবুবকর ( রা:) বললেন, তুমি যেহেতু এই পরিমাণ পয়সা বাচিয়ে রাখতে পারলে তাহলে বুঝা গেল এই পরিমাণ পয়সা ছাড়া ও আমার সংসার চলতে পারে। স্ত্রীর কাছ থেকে পয়সাগুলো নিয়ে রাষ্ট্রীয় কোষাগারের দিকে গেলেন এবং তার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিকে বললেন আগামী মাস থেকে আমার ভাতা এই পরিমাণ কমিয়ে দিবে। কারণ এই পয়সা ছাড়া ও আমার সংসার চলতে পারে।
ইন্তেকালের পূর্বে আবুবকর সিদ্দিক( রা:)  তার কন্যা হজরত আয়েশা ( রা:)কে বললেন, আমি রাষ্ট্রপ্রধান হওয়ার সুবাধে রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে আমাকে দুধাল উটনিটি,তরকারির পেয়ালা এবং এই চাদরটি দেওয়া হয়ে ছিল। আমার ইন্তেকালের পর হজরত উমর ( রা:) এর নিকট উক্ত জিনিস গুলো পৌঁছিয়ে দিবে।
উল্লেখিত ঘটনাদি দ্বারা বুঝা যায় হজরত আবুবকর ( রা:) রাষ্ট্রের সম্পদ ব্যবহারে কি পরিমাণ সতর্কতা অবলম্বন করতেন।
তিনি ছিলেন একজন আদর্শ রাষ্ট্র নায়ক। আজও বিশ্বজুড়ে যারা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত তাদের জন্য রাষ্ট্রপ্রধান আবুবকর সিদ্দিক ( রা:) এক রুল মডেল।
আল্লাহ তায়ালা আমাদের জন্য ও এমন আদর্শবান জনদরদী রাষ্ট্রপ্রধান দান করুন।
লেখক
মুফতী মোহাম্মদ এনামুল হাসান
যুগ্ম সম্পাদক
ইসলামী ঐক্যজোট
ব্রাক্ষণবাড়ীয়া জেলা।