২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ. ১৭ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

পুলিশি বাঁধায় পন্ড যুবদলের আনন্দ মিছিল, আটক-১, ছাত্রলীগ-যুবলীগের বিক্ষোভ মিছিল

স্টাফ রিপোর্টার:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় উপজেলা ও পৌর যুবদলের নতুন আহ্বায়ক কমিটির আনন্দ মিছিল পুলিশের বাঁধায় পন্ড হয়ে গেছে। দুই গ্রুপের সংঘর্ষের আশংকায় মিছিলটি ছত্রভংগ করে দেয়া হয় বলে জানায় পুলিশ। সোমবার সকালে উপজেলা সদরের অনন্তপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কসবা উপজেলা ও পৌর যুবদলের নতুন আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন দেওয়ায় উপজেলার সকল ইউনিয়নের যুবদল ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের নিয়ে সকালে একটি আনন্দ মিছিল বের করেন উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মাসুদুল হক ভূইয়া। মিছিলটি বিনাউটি ইউনিয়নের অনন্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে বের করে কিছুদূর যাওয়ার পর পুলিশ তাতে বাঁধা দেয়। এসময় পুলিশের সাথে মিছিলকাদের ধাক্কাধাক্কি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে মিছিলটি পন্ড হয়ে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক সিরাজুল হক ইমুকে আটক করেছে।

কসবা উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক মাসুদুল হক ভূইয়া বলেন, নতুন কমিটি গঠন করায় আমরা নেতাকর্মী নিয়ে আনন্দ মিছিল বের করি। পুলিশ বিনা উস্কানিতে আমাদের শান্তিপূূর্ণ মিছিলে বাঁধা দিয়েছে। পুলিশ আমাদের এক কর্মীকে ধরে নিয়ে গেছে এবং বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। তিনি এঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবী করে আটককৃত সিরাজুল ইসলাম ইমুকে ছেড়ে দেয়ার দাবী জানান।

কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার অরুপ পাল জানান, সংঘর্ষে কেউ আহত হয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছে এমন জানা নেই।

কসবা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলমগীর ভূইয়া জানান, অনুমতি ছাড়াই তারা এ আনন্দ মিছিলের নামে জন সমাগম করে। এছাড়া যুবদলের পদধারী ও পদ বঞ্চিতদের মধ্যে উত্তেজনা চলতে থাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ বাঁধা দিয়ে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ ঘটনায় কেউ আহত হয়নি। একজনকে আটক করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ব্যক্তিগত সহকারী আবদুর রহমান সানির বড় ভাই কবির আহাম্মদের অনুসারী যুবদলের নেতাকর্মীদের মাধ্যমে একক ভাবে উপজেলা যুবদল ও পৌর যুবদল নামে দুটি পকেট কমিটি ঘোষনা করা হয়। এ কমিটি বাতিলের দাবীতে এর আগে গত ১৮ সেপ্টেম্বর গত বছরে ঘোষিত যুবদলের কমিটির নেতাকর্মী ও সমর্থকরা সংবাদ সম্মেলন ও ঝাড়– মিছিলসহ বিক্ষোভ কর্মসূচী করে।

এদিকে- ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় উপজেলা যুবদল ও পৌর যুবদলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরে যুবদলের বিবাদমান গ্রুপের পাল্টাপাল্টি মিছিল এবং নৈরাজ্যের প্রতিবাদে কসবায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে উপজেলা যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

সোমবার সকালে উপজেলা যুবদলের নেতা-কর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনার পর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এম.এ আজিজ ও কসবা পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সায়েদুর রহমান মানিকের নেতৃত্বে উপজেলা যুবলীগের নেতা-কর্মীরা পৌর এলাকায় একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। বিক্ষোভটি পৌর এলাকার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ করে।

এ ব্যাপারে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক এমদাদুল হক পলাশ বলেন, উপজেলা যুবলীগের নেতা-কর্মীরা এলাকায় নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের চেষ্টা সফল হতে দেয়নি।

অপর দিকে যুবদলের নৈরাজ্যের প্রতিবাদে দুপুরে উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক আফজাল হোসেন রিমনের নেতৃত্বে পৌর এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করে উপজেলা ছাত্রলীগ। শহরের মুক্তিযোদ্ধা চত্বর থেকে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুরাতন বাজার এলাকায় এসে শেষ হয়।

মিছিল শেষে উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক আফজাল হোসেন রিমন বলেন, কসবা উপজেলা যুবদলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরে দ্বিধাবিভক্ত যুবদলের নেতা-কর্মীরা উপজেলা সদরের বিভিন্ন স্থানে ঝাড়– মিছিল, জুতা মিছিল করে নৈরাজ্যের সৃষ্টি করছে। যার কারনে কসবার শান্তিপূর্ন রাজনৈতিক পরিবেশে বিঘিœত হচ্ছে। তিনি বলেন, কসবা আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হকের এলাকা। এখানে কাউকে নৈরাজ্য করতে দেয়া হবে না। যারা নৈরাজ্যের সৃষ্টি করবে তাদেরকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করা হবে।