৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ. ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

হেফাজতের আরো ২৪ কর্মী-সমর্থক গ্রেপ্তার

স্টাফ রিপোর্টার:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তান্ডবকালে সদর মডেল থানায় ঘেরাও এবং শহরজুড়ে ব্যাপক ভাংচুর ও অগ্নিকান্ডের ঘটনায় হেফাজতে ইসলামের আরো ২৪জন নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গত ২৪ ঘন্টায় জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে মাদরাসার ছাত্র মাহাবুবুর রহমান- (২৬)। তিনি গত ২৮ মার্চ হেফাজতের হরতালের দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় হামলার ঘটনায় জড়িত। গত রোববার বিকেলে সদর উপজেলার রামরাইল ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত মাহাবুবুর রহমান মোহাম্মদপুর গ্রামের শাহনেওয়াজের ছেলে ও পৌর এলাকার ভাদুঘর মাদরাসার কামিল বিভাগের ছাত্র।

সোমবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের বিশেষ শাখা থেকে গনমাধ্যম কর্মীদের কাছে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তি বলা হয়, গত ২৪ ঘন্টায় তান্ডবের ঘটনায় জড়িত থাকার অপরাধে হেফাজতের আরো ২৪জন নেতা-কর্মী ও সমর্থককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এনিয়ে এই ঘটনায় মোট ১০৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখা থেকে গনমাধ্যম কর্মীদের কাছে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, তান্ডবের ঘটনায় জেলার বিভিন্ন থানায় মোট ৪৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর মধ্যে সদর মডেল থানায় ৪৩টি, আশুগঞ্জ থানায় ৩টি, সরাইল থানায় ২টি এবং আখাউড়া রেলওয়ে থানায় একটি। ৪৯ টি মামলায় এজাহারনামীয় ২৮৮ জনসহ অজ্ঞাতনামা ৩৫ হাজার লোককে আসামি করা হয়। এসব মামলায় রোববার রাত পর্যন্ত ১০৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পুলিশ ৮৪ জন, আশুগঞ্জ থানার পুলিশ ১৩ জন এবং সরাইল থানার পুলিশ ৯ জনকে গ্রেপ্তার করে।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ লোকমান হোসেন জানান, গত ২৮ মার্চ হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতালের দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় হামলা করে হেফাজতের সমর্থকরা। এ সময় উরুতে গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয় মাদরাসা ছাত্র মাহবুবুর রহমান। আহত হয়ে সে পালিয়ে কুমিল্লায় চিকিৎসা নেয়। পরে বাড়িতে আসলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রোববার বিকেলে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।
এ ব্যাপারে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ডিআইওয়ান) ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, পুলিশ আসামীদের ভিডিও ফুটেজ ও ছবি দেখে তাদেরকে গ্রেপ্তার করছে। এছাড়া ও যাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে তাদেরকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে। তিনি বলেন, রোববার রাত পর্যন্ত তান্ডবের ঘটনায় ১০৬জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
উল্লেখ্য ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশে আগমনের প্রতিবাদে হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীরা গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ চালায়।
হামলাকারীরা সরকারি ও বেসরকারি প্রায় অর্ধশতাধিক স্থাপনা ব্যাপক ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে পুরো ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে মৃত্যুপুরিতে পরিনত করে।