৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ. ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

বর্তমান সরকার সাংবাদিকদের পরিপূর্ন স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে – মোকতাদির চৌধুরী এমপি

স্টাফ রিপোর্টার,

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য এবং বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার সাংবাদিকদের পরিপূর্ন স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে।

তিনি বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব ভবনের ৬ষ্ঠ তলার উদ্বোধন এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিশ্রুত অর্থায়নে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের বহুতল বিশিষ্ট ভবন নির্মানকাজ সু-সম্পন্ন হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি প্রেসক্লাবের কৃতজ্ঞতা ফলক উম্মোচন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের আহবায়ক খ.আ.ম রশিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি আরো বলেন, সাংবাদিকদের কলম অনেক শক্তিশালী। রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ হিসেবে সাংবাদিকদের গুরুত্ব অপরিসীম। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার সাংবাদিক কল্যান ট্রাস্টের মাধ্যমে করোনা পরিস্থিতিতে সারা দেশে সাংবাদিকদের আর্থিক সহায়তা করেছেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় একটি অসম্প্রদায়িক কল্যানময় রাষ্ট্র গঠনে

সাংবাদিকদের কাজ করার আহবান জানান। তিনি বলেন, যারা প্রকৃত সাংবাদিক তারা কখনো হলুদ সাংবাদিকতা পছন্দ করেন না, আমরাও করি না। সাংবাদিক নির্যাতনে যারা জড়িত তাদেরকে আমরা ঘৃনা করি। আমরা আগেও সাংবাদিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে ছিলাম, এখনো আছি এবং সব সময় থাকব।

প্রেসক্লাবের সদস্য সচিব দীপক চৌধুরী বাপ্পীর পরিচালনায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার মেয়র মিসেস নায়ার কবির ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আল-মামুন সরকার।

অনুষ্ঠানে মোকতাদির চৌধুরী এমপিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য পদ প্রদান করা হয় ও আজীবন সদস্যের সার্টিফিকেট তাঁর হাতে তুলে দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সর্বস্তরের সাংবাদিকসহ সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগন উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য মোকতাদির চৌধুরী এমপির দেয়া অর্থ ও প্রেসক্লাবের নিজস্ব অর্থায়নে প্রেসক্লাব ভবনের ৬ষ্ঠ তলার নির্মান কাজ শেষ হয়। এর আগে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ৫৬ লাখ টাকায় প্রেসক্লাবের বহুতল বিশিষ্ট ভবনের নির্মানকাজ করা হয়।