২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ. ১০ই জুলাই, ২০২০ ইং

চরম ভোগান্তির পর ত্রিপুরা থেকে দেশে ফিরলেন ইয়াকুব দম্পতি

স্টাফ রিপোর্টার,
ভারত জুড়ে লকডাউনের ফাঁদে পরে চরম ভোগান্তির পর অবশেষে ত্রিপুরা থেকে দেশে ফিরেছেন ইয়াকুব দম্পতি। বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট দিয়ে দেশে ফেরেন তারা।
দেশে ফেরা দম্পতিরা হলেন, কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর উপজেলার ঠাকুরপাড়া গ্রামের ইয়াকুব আলী-(৫২) এবং তার স্ত্রী শিরিনা বেগম-(৪৮)।

দেশের মাটিতে পৌছে গত দুই দিনের চরম ভোগান্তির কথা তুলে ধরেন তারা। সেই সাথে তারা বাংলাদেশের সহকারী হাই কমিশন ও ত্রিপুরা রাজ্যের গণমাধ্যম কর্মীদেরদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৫ ফেব্রয়ারি স্বামীর লিভার ক্যান্সারের চিকিৎসা নিতে ভারতের চেন্নাই গিয়েছিলেন বাংলাদেশের এই দম্পতি।

গত রোববার (২৪মার্চ) সন্ধ্যায় বিমানযোগে চেন্নাই থেকে কোলকাতা হয়ে তারা ত্রিপুরা রাজ্যের রাজধানী আগরতলায় পৌছান। আগরতলায় এসে তারা করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে ভারত সরকার ঘোষিত লকডাউনে আটকা পড়েন। পরে তারা আগরতলা শহরের খোলা আকাশের নীচে অবস্থান করেন।
পরে বিষয়টি নিয়ে রাজ্যের বিভিন্ন গণমাধ্যমে হৈ চৈ পড়ে।

আখাউড়া স্থলবন্দরে গত দুই দিনের দুঃসহ কষ্টের বর্ণনা দিয়ে শিরিনা বেগম জানান, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে সরকারের লকডাইন থাকায় অসুস্থ স্বামীকে নিয়ে আগরতলায় এসে বিপাকে পড়ি। আগরতলা থেকে বাংলাদেশে আসার কোন সুযোগ ছিল না। লকডাউনের কারণে আগরতলা শহরে কোন আবাসিক হোটেল কিংবা গেষ্ট হাউজ কোনটাই খোলা ছিল না। পুরো শহর ছিল জনমানব শূণ্য। সেখানে কোথাও থাকার ব্যবস্থা না পেয়ে অসুস্থ্য স্বামীকে নিয়ে রাস্তার পাশে খোলা আকাশের নীচে বসে থাকি।

পরে সেখানকার গণমাধ্যম কর্মীরা আমাদের অসহায়ত্বের খবরটি গুরুত্বের সাথে পত্রিকায় তুলে ধরেন। পরে রাজ্যের পুলিশ প্রশাসন ও ত্রিপুরাস্থ বাংলাদেশ সহকারী হাইকমিশন আমাদের খুঁজে বের করেন। পরে আগরতলা হজ্ব ক্যাম্পে আমাদেরকে থাকার ব্যবস্থা করে দেন তারা। বৃহস্পতিবার সকালে ত্রিপুরা পুলিশের একটি গাড়ীতে করে তারা বাংলাদেশে আসার জন্যে আগরতলা ইমিগ্রেশনে আসেন। পরে সেখানে (আগরতলা ইমিগ্রেশনে) প্রবেশকালে তাদেরকে আটকে দেয় কর্তব্যরত বিএসএফ। পরে আবারো গণমাধ্যমকর্মী এবং বাংলাদেশের উপ-হাই কমিশনকে ফোন করে বিষয়টি জানাই। পরে তারা ত্রিপুরা সরকারের উচ্চ পর্যায়ে কথা বলে আমাদেরকে দেশের মাটিতে ফেরার ব্যবস্থা করেন।
শিরিনা বেগম বলেন, ত্রিপুরা রাজ্যে লকডাউন থাকা সত্ত্বেও নিজ দেশে ফিরে আসার সুযোগ করে দেয়ায় ত্রিপুরা রাজ্য সরকার ও বাংলাদেশ সহকারী হাই কমিশনের কাছে কৃতজ্ঞতা জানাই। অসুস্থ্য ইয়াকুব আলী বলেন, এমন দুর্ভোগ বর্ণনা করার মতো নয়। তবে ধন্যবাদ সে দেশের গণমাধ্যম কর্মীদের। আর কিছু বলতে চাইনা।

ভারতের ত্রিপুরাস্থ বাংলাদেশ সহকারী হাইকমিশনার কিরীটি চাকমা সাংবাদিকদের বলেন, আগরতলার সাংবাদিকদের মাধ্যমে খবর পেয়ে ওইদিন রাতেই বাংলাদেশ দম্পতিকে মেডিক্যাল চেকআপের পর তাদের থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। পরবর্তীতে রাজ্য সরকারের সহযোগিতায় অসুস্থ এ দম্পতিকে বৃহস্পতিবার দুপুরে আখাউড়া-আগরতলা ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট সীমান্ত পথে দেশে ফেরার ব্যবস্থা করা হয়।

এ ব্যাপারে আখাউড়া ইমিগ্রেশনের ইনচার্জ আবদুল হামিদ বলেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে ভারত জুড়ে লকডাউন চলছে। তিনি বলেন, ভারতে লকডাউনের মধ্যেও বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত শিরিন দম্পতিসহ ১৫জন বাংলাদেশী যাত্রী দেশে ফিরেছেন। তিনি বলেন, পুলিশ সুপারের নির্দেশে একটি এ্যাম্বুলেন্সে করে ইয়াকুব দম্পতিকে কুমিল¬া জেলার মুরাদনগরে পৌছে দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।