১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ. ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

নাসিরনগরে রাতের আধারে হল সুপার ও শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা, আহত-৮

 

নাসিরনগর প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে দাখিল পরীক্ষার্থী ও তার সহযোগীদের হামলায় উপজেলার দাঁতমন্ডল এরফানিয়া আলিম সিনিয়র মাদরাসা কেন্দ্রের হল সুপারসহ ৮জন আহত হয়েছে। গত শনিবার রাতে উপজেলার দাঁতমন্ডল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে আহত হল সুপারসহ অন্যান্য আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে।

আহতরা হলেন, দাঁতমন্ডল এরফানিয়া আলিম সিনিয়র মাদরাসা কেন্দ্রের হল সুপার জহিরুল ইসলাম, দাখিল পরীক্ষার্থী শাহরিয়ার কামাল-(১৬), আয়েত আলী-(১৭), মফিজুল ইসলাম-(১৫), রাজু মিয়া-(১৭), মিনারা বেগম-(১৫), লাখী আক্তার-(১৬) ও হেপী আক্তার-(১৬)।

পুলিশ ও আহত হল সুপার জহিরুল ইসলাম জানান, বোর্ডের নিয়মানুযায়ী পরীক্ষার্থীদের আসন বিন্যাস করার কথা। কিন্তু সে নিয়ম না মেনে বাংলা ১ম পত্র, ২য় পত্র ও ইংরেজি ১ম পত্রের পরীক্ষা নেয়া হয়। পরে আসন পুনঃবিন্যাসের অনিয়মটি হলের ভারপ্রাপ্ত কর্মকতার্র দৃষ্টিতে আসলে শনিবার বোর্ডের নিয়মানুযায়ী পুনরায় আসন পুনঃবিন্যাস করা হয়।

বিষয়টি জানতে পেরে দাঁতমন্ডল মাদরাসার দাখিল পরীক্ষার্থী শেখ তানভির মিয়া ও তার ৬/৭ জন সহযোগী শনিবার রাত দিকে দাঁতমন্ডল গ্রামের দরজ মিয়ার বাড়িতে অবস্থান নেয়া খান্দুরা ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসার পরীক্ষার্থীসহ হল সুপার জহিরুল ইসলামের কক্ষে প্রবেশ করে আসন পরিবর্তনের বিষয়টি জানতে চায়। তখন তিনি বলেন, পূর্বের আসন বিন্যাসে অনিয়ম হয়েছে। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্দেশে নতুন করে আসন বিন্যাস করা হয়েছে। এ কথা বলার সাথে সাথেই তানভির ও তার সহযোগীরা তাঁর ওপর হামলা করে এলোপাতাড়ি চড়-থাপ্পড় মারতে থাকে।

পরে হল সুপারের চিৎকারে পাশের রুমে থাকা শিক্ষার্থীরা এগিয়ে আসলে তারা শিক্ষার্থীদেরকেও মারধোর করেন। পরে তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে তানভীর ও তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে আহত শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উদ্ধার করে নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে চিকিৎসা দেয়া হয়। খবর পেয়ে নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজেদুর রহমান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আজহারুল ইসলাম ভুইয়াও হাসপাতালে আহতদের দেখতে যান। চিকিৎসা শেষে আহতরা রাতে উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহবায়ক শরীফুজ্জামান চৌধুরী সুমনের বাসায় রাত্রিযাপন করেন।

এ ব্যাপারে নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজেদুর রহমান জানান ‘অনৈতিক সুবিধা না পেয়ে একজন শিক্ষকের ওপর হামলা চালানোর ঘটনা দুঃখজনক। আমরা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমা আশরাফী বলেন, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনা খুবই দুঃখজনক। আইন আইনের গতিতেই চলবে।