২৯শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ. ১৩ই জুলাই, ২০২০ ইং

উপজেলা আওয়ামী লীগে সভাপতি পদে তৃণমূলের সমর্থন পৌর মেয়র কাজলকে

মীর মোঃ শাহীন,এনবিডেস্কঃ
আগামী ১ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বাষিক সম্মেলন। ওই দিন বিকেলে উপজেলা পরিষদ মাঠে প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মেলন উদ্বোধন করবেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক অধ্যক্ষ মোঃ জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখবেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আল-মামুন সরকার।

এদিকে সম্মেলনকে সামনে রেখে দলীয় নেতা-কর্মীরা এখন খুবই চাঙ্গা। ইতিমধ্যে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে আখাউড়ার পৌর মেয়র ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মোঃ তাকজিল খলিফা কাজলকে সমর্থন দিয়েছে উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের তৃণমূলের নেতৃবৃন্দ। ইতিমধ্যেই তারা এ সংক্রান্ত লিখিত আবেদন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও আইনমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়েছেন।

নেতা-কর্মীরা জানান, কে হতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের আগামী দিনের কান্ডারী তা মূলত নির্ভর করবে আইনমন্ত্রীর উপরই। তৃণমূলের নেতা-কর্মীরাও আগামীর নেতৃত্ব বিষয়ে মন্ত্রীর উপর আস্থাশীল। ইতিমধ্যেই তৃণমূল নেতৃবৃন্দ বিষয়টি মন্ত্রীকে অবহিত করেছেন।

দলীয় নেতা-কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সম্মেলনে সভাপতি পদে পাঁচজন ও সাধারন সম্পাদক পদে চারজন প্রতিদ্বন্দ্বিতার করার ঘোষণা করেছেন। সভাপতি পদে প্রার্থীরা হলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক অধ্যক্ষ মোঃ জয়নাল আবেদীন, যুগ্ম-আহবায়ক মোঃ সেলিম ভূঁইয়া, সদস্য মোঃ রফিকুল ইসলাম, সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মোহাম্মদ আলী চৌধুরী এবং উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও পৌর মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল।

সাধারন সম্পাদক পদে প্রার্থীরা হলেন, মোঃ আব্দুল হালিম হেলাল, মোঃ হুমায়ুন কবির মোল্লা, গোলাম সামদানী ফেরদৌস ও মোঃ মনির হোসেন। নেতা-কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সভাপতি পদে মোহাম্মদ আলী চৌধুরী ও তাকজিল খলিফা কাজল অনেকটাই এগিয়ে আছেন। মোহাম্মদ আলী রাজনীতিতে দীর্ঘদিন নীরব থাকলেও তাকে নিয়ে আলোচনা আছে। তবে মোহাম্মদ আলী এখন পর্যন্ত জোরেশোরে মাঠে নামেন নি।

৫টি ইউনিয়ন নিয়ে আখাউড়া উপজেলা গঠিত। উপজেলার সবকটি ইউনিয়নের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা তাকজিল খলিফা কাজলকে লিখিতভাবে সমর্থন দেয়ায় তিনি সভাপতি পদে এগিয়ে রয়েছেন। এছাড়াও পৌর আওয়ামী লীগ, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ, উপজেলা যুবলীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগসহ সংশ্লিষ্টরা আলাদা আলাদা সভা করে তাকজিল খলিফাকে সমর্থন জানিয়েছেন। পাঁচ ইউনিয়নের মধ্যে মোগড়া বাদে বাকি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা তাকজিল খলিফাকে সমর্থন করেছেন।

সম্মেলন উপলক্ষে পৌর এলাকায় যে গোট ত্রিশেক তোরণ হয়েছে এর সব কয়টিই তাকজিল খলিফার সমর্থনে। উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ শাহবুদ্দিন বেগ শাপলু বলেন, ‘সার্বিক দিক বিবেচনায় এগিয়ে আছেন মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল। সততা, নিষ্ঠা, মেধার দিক দিয়ে তিনি এগিয়ে। যে কারণে তাঁকে সমর্থন দিয়েছে তৃণমূল পর্যায়। ছাত্রলীগও সভা করে তাঁর পক্ষে কাজ করছে।

উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল মমিন বাবুল বলেন, ‘উপজেলা যুবলীগও মেয়র কাজলকে সমর্থন দিয়েছেন। এছাড়া আওয়ামী লীগের তৃণমূলও তাকে সমর্থন দিয়েছেন। দলকে চাঙ্গা করতে তাকজিল খলিফার কোনো বিকল্প নেই।’

উপজেলার দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ মজনু মিয়া বলেন, সাংগঠনিকভাবে দক্ষ, তরুণ নেতা তাকজিল খলিফাকে আমরা সভাপতি হিসেবে দেখতে চাই। তবে এ বিষয়ে মন্ত্রী মহোদয় যে সিদ্ধান্ত দিবেন সেটাই মেনে নিবো।

এ ব্যাপারে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক কাজী নাসির উদ্দিন খাদেম লিটন বলেন, ‘ছোট বেলা থেকে রাজনীতি করে ধাপে ধাপে এগিয়ে এসেছেন তাকজিল খলিফা কাজল। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে তিনিই আমাদের পছন্দ। ইতিমধ্যেই আমরা লিখিতভাবে বিষয়টি মন্ত্রীকে জানিয়েছি।